চোখ ওঠা রোগের লক্ষণ ও চিকিৎসা

চোখ ওঠা রোগ চিকিৎসা কী । চোখ ওঠে কেন, কীভাবে ছড়ায়

চোখ ওঠা রোগ যা চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় কনজাংটিভাইটিস এটি একটি খুবে পুরাতন চোখের এক ধরণের সংক্রমণ রোগ। চোখ ওঠা রোগ হলে চোখ লাল হয়ে যায়, চোখের ভিতরে জালা যন্তনা করে ও চোখ ফুলে যায়। কেনবা চোখ ওঠে? এর আধুনিক চিকিৎসাবা কি? কখন ডাক্তারের কাছে যাবেন ইত্যাদি প্রশ্ন উত্তর নিয়ে হাজির হয়েছি আমরা এই ব্লগ পোস্টে।

 

চোখ ওঠে কেন আর ছড়ায় কীভাবে?

 

চোখ ওঠা রোগ খুবে মারাত্মক একটি ছোঁয়াচে রোগ। রোগীর ব্যবহার্য্য চশমা, টিসু, রুমাল, গামছা বা প্রসাধনী বা ইত্যাদি জিনিস বাড়ির অন্যরা ব্যবহার করলে তারাও কনজাংটিভাইটিস সংক্রমণে আক্রন্ত হতে পারেন। কনজাংটিভাইটিস হলো ভাইরাস জনিত ইনফেকশন যা বাতাসের মাধ্যমে ও ছড়ায় তাই কোন চোখ ওঠা রোগীর আশে-পাশে মেলামেসা করলে আক্রন্ত হওয়ার অনেকটা ঝুকি থাকে। কনজাংটিভাইটিস ভাইরাস আক্রন্ত রোগীকে সব সময়ে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকতে হবে।

একটি গবেষণার মাধ্যমে দেখা গেছে যে মোট ৩টি কারণে চোখ ওঠা রোগ হতে পারে। ১। ব্যাকটিরিয়া ২। ভাইরাস ৩। অ্যালার্জি। চোখে যদি ব্যাকটিরিয়া বা ভাইরাস এর আক্রমণ হলে তাকে ইনফেক্টিভ কনজাংটিভাইটিস বলা হয়। কিভাবে বুঝবেন আপনার চোখে ভাইরাসের আক্রমণ হয়েছে। চোখে ভাইরাস এর সংক্রমণ হলে চোখ দিয়ে বার বার পানি পরবে, চোখ ফুলে যাবে।

 

আরো পড়ুনঃ সেক্সে রসুনের উপকারিতা । সেক্সে বৃদ্ধির উপায় কি

 

আর ব্যাকটিরিয়া দ্বারা সংক্রমণ হলে চোখ দিয়ে আঠাঁলো পুঁজ বের হবে, ও চোখ হলুদ অথবা সবুজ রঙ ধারণ করবে। এছাড়া যাদের অ্যালার্জির সমস্যা রয়েছে তাদের ও চোখ ওঠতে পারে।

 

চোখ ওঠার লক্ষণ সমূহ

 

চোখ টকটকে লাল রং ধারণ করবে, প্রথবে যে কোন একটি চোখ সংক্রমণ হবে এর পরে বিপরিত চোখেও আক্রান্ত হবে। চোখের ভিতরে খচখচ করবে, চুলকাবে, জ্বালাপোড়া করবে ও চোখ দিয়ে পানি পড়বে। সকাল ঘুম থেকে উঠার পড়ে দেখবেন চোখের পাপরি আঠার মতো লেগে রয়েছে।

 

 

চোখ ওঠা রোগের চিকিৎসা

 

আপনি চাইলে বাড়িতে বসে থেকে চিকিৎসা নিতে পারবেন। এর জন্য আপনাকে পরিস্কার সাদা রঙের কাপড় অথবা তুলো গরম পানিতে ভিজিয়ে আলতো ভাবে চোখ পরিস্কার করতে হবে দিনে কয়েকবার। তবে আপনিকে ২টি চোখের জন্য আলাদা কাপড় ও পানি ব্যবহার করতে হবে। বেশিক্ষণ মোবাইল ফোন ব্যবহার করা যাবে না, ছোট লেখা পড়া যাবে না চোখে বেশি চাপ প্রদান করা যাবে না। অ্যান্টিবায়োটিক আই ড্রপ বা মলম ব্যবহার করতে পারেন আর যদি এল্যার্জির কারণে যদি চোখ ওঠে তাহলে এ্যালার্জির ওষুধ সেবণ করতে হবে।

 

কখন ডাক্তারের এর কাছে যাবেন?

 

এর জন্য তেমন কোন ডাক্তারের কাছ যাওয়ার প্রয়োজন পরে না। কেননা চোখ ওঠা রোগ এমনিতে ভালো হয়ে যায় তাও ৭ থেকে ১০ দিন এর মতো সময় লাগে। তবে প্রয়োজন অনুসারে চিকিৎসকের পরার্মশ নিতে পারেন।

Spread the love

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *