Health Benefits Of Jackfruit

কাঁঠাল এর ২০টি উপকারিতা জানলে অবাক হবেন | Health Benefits Of Jack fruit

কাঁঠাল এর ২০টি উপকারিতা

 

আজকে আমরা  কথা বলবো বাংলাদেশের জাতীয় ফল কাঁঠাল নিয়ে কাঁঠালের বিচিত্র উপকারিতা নিয়ে । আজকে আমরা আলোচনা করবো জাতীয় ফল কাঁঠাল এর ২০পি উপকারিতা নিয়ে । বাংলাদেশের কাঠাল জাতীয় ফল বলে আমাদের জানা আছে এর ইংরেজি নাম হচ্ছে Jackfruit বাংলাদেশের সব স্থানেই কমবেশি কাঠাল পাওয়া যায় ।

বসন্ত  প্রথম দিকে এটি কাঁচা অবস্থায় এবং গ্রীষ্ম বর্ষায় পাকা অবস্থায় পাওয়া যায় । এটি আকারে বেশ বড় হয়ে থাকে এর পুষ্টিগুণ রয়েছে অনেক কাঁঠালের ৪/৫ গোয়া থেকে ১০০ কিলোক্যালরি খাদ্যশক্তি পাওয়া যায় । এর হলুদ রঙের কোষ হচ্ছে ভিটামিন এ সমৃদ্ধ দুই থেকে তিন কোষ কাঁঠাল আমাদের এক দিনের ভিটামিন এর চাহিদা পূরণকরে সেজন্য কাঁঠাল অপুষ্টিজনিত সমস্যা রাতকানা এবং রাতকানা থেকে অন্ধত্ব প্রতিরোধ করার জন্য খুবই উপযোগী ফল ।

 

আরো পড়ুনঃ চুলের যত্নে আমলকী ! কিভাবে বানাবেন আমলকীর তেল

 
Benefits Of Jackfruit

 

শিশু কিশোর কিশোরী এবং কোন বয়সে নারী-পুরুষ সব শ্রেণীর জন্যখুবই উপকারী কাঠাল ফল গর্ভবতী এবংযে মা বুকের দুধখাওয়ান তাদের জন্য কাঁঠাল খুবেই দরকারি ফল । শরীরেভিটামিন এ এর অভাব দেখা দিলে ত্বক খসখসে হয়ে যায় শরীরের লাবণ্য তা হারিয়ে ফেলে এজন্য কাঁঠাল প্রতিরোধ করতে পারে এছাড়া কাঁঠালের মধ্যে ভিটামিন সি এবং কিছুটা  ভিটামিন বি আছে ।

পাকা কাঁঠাল যেমন উপকার রয়েছে তেমনি কাঁচা কাঁঠাল ও কম উপকারী নয় কাঁচা কাঁঠাল আমিষ ও ভিটামিন সমৃদ্ধ তরকারি। কাঁচা কাঁঠালের বিচি বাদামের মত ভেজে খাওয়া যায় তেমনি তরকারি হিসেবে ও খাওয়া যায় । ১০০ গ্রাম কাঁঠালের বিচিতে ৬.৬ গ্রাম আমিষ আছে ও ২৫.৮গ্রাম শর্করা আছে । সবার জন্য আমিষ সমৃদ্ধ কাঁঠালের বিচির উপকারিতা আছে । আমাদের সকলের উচিত বেশি বেশি করে কাঠাল গাছ লাগানো । সেই সঙ্গে কাটার দিয়ে ভিটামিন এ এর ঘাটতি পূরণ করা সম্ভব।

 

আজকে আমরা জেনে নিবো কাঁঠালের ২০টি উপকারিতাঃ

 

১ কাঁঠালের চর্বির পরিমাণ নিতান্ত কম এই ফল খাওয়ার কারণে ওজন বৃদ্ধির আশংকা কম ।

২ কাঁঠাল পটাশিয়ামের উৎস ১০০ গ্রাম কাঁঠালে পটাশিয়ামের পরিমাণ ৩০৩ মিলিগ্রাম যারা পটাশিয়াম উচ্চ রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে এজন্যে কাটালে উচ্চরক্ত চাপের উপশম হয় ।

৩ কাঁঠালে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন এ আছে যা রাত কানা রোগ প্রতিরোধ করে ।

৪ কাঁঠালের অন্যতম উপযোগিতা হলো ভিটামিন সি প্রকৃতিক ভাবে মানব দেহে ভিটামিন সি উৎপাদন হয়না রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি ও দাতের মাড়ি শক্তিশালী করে ভিটামিন সি ।

৫ কাঁঠালে বিদ্যমান ফাইটোনিউট্রিয়েন্ট ক্যান্সার,আলসার, উচ্চ রক্তচাপ এবং বার্ধক্য প্রতিরোধে সক্ষম ।

৬ কাঁঠালে আছে শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা আমাদের দেহকে ক্ষতিকর ফ্রি রেডিক্যাল থেকে রক্ষা করে এছাড়াও আমাদের কে সর্দি কাশি রোগের সংক্রমণ থেকে রক্ষা করে ।

৭ টেনশন এবং নরমাল প্রেসার কমাতে কাঁঠাল বেশ কার্যকরী ।

৮ বদ হজম কমাতে কাঁঠাল বেশ উপকারিতা আছে ।

৯ কাঁঠাল গাছের শেখর হাঁপানি উপশম করে শেখর সিদ্ধ করলে যে উৎকৃষ্ট পুষ্টি উপাদান নিষ্কাশিত হয় তা হাঁপানির প্রকোপ নিয়ন্ত্রণে সক্ষম ।

১০ চর্ম রোগের সমস্যা সমাধানে ও কাঁঠালের শেকড় কার্যকরী জ্বর এবং ডায়রিয়া নিরাময় করে কাঁঠালের শেকড় ।

১১ কাঁঠালে আছে বিপুল পরিমাণে খনিজ উপাদান ম্যাঙ্গানিজ রক্তের শর্করা বা চিনির পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে

১২ কাঁঠালে বিদ্যমান ম্যাগনেসিয়াম ক্যালসিয়াম এর মত হাড়ের গঠন ও হাড় শক্তি শালীকরণে ভূমিকা পালন করে ।

১৩ কাঁঠালে আছে ভিটামিন b6 যা হৃদ রোগের ঝুঁকি কমায় ।

১৪ কাঁঠালে বিদ্যমান ক্যালসিয়াম কেবল হাড়ের জন্য উপকারী নয় রক্ত সংকোচন প্রক্রিয়া ও সমাধানে ও ভূমিকা রাখে ।

১৫ ৬ মাস বয়সের পর থেকে মায়ের দুধের পাশা পাশি শিশুকে  কাঁঠালের রস খাওয়ালে শিশুর ক্ষুধা নিবারণ হয় অন্য দিকে তার প্রয়োজনীয় ভিটামিনের অভাব পূরণ হয় ।

১৬ চিকিৎসা শাস্ত্র মতে প্রতিদিন ২০০ গ্রাম তাজা পাকা কাঁঠাল খেলে গর্ভবতী মহিলা ও তার গর্ভধারন কৃত শিশুর সব ধরনের পুষ্টির অভাব দূর হয় ।

১৭ গর্ভবতী মহিলারা কাঁঠাল খেলে স্বাস্থ্য স্বাভাবিক থাকে এবং গর্ভস্থ সন্তানের স্বাস্থ্য স্বাভাবিক হয় ।

১৮ দুগ্ধ দান কারী মাতারা পাকা কাঁঠাল খেলে দুধের পরিমাণ বৃদ্ধি পায় ।

১৯ কোষ্ঠ কাঠিন্য দূর করে ।

২০ কাঁঠালে রয়েছে খনিজ উপাদান আয়রন যা দেহের রক্তাল্পতা দূর করে ।

এরকম স্বাস্থ্য সম্পর্কিত নতুন নতুন তথ্য জানতে আমাদের সাথে থাকুন এবং এই পোস্টটি আপনার ফেসবুকে শেয়ার করে রাখতে পারেন ।

Spread the love

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *