shesher kobita pdf

শেষের কবিতা লিরিক্স – রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর (শেষের কবিতা উপন্যাস থেকে) shesher kobita pdf

শেষের কবিতা লিরিক্স

 

সবাই কেমন আছেন আশাঁ করা যায় সকলে ভালো আছেন সুস্থ আছেন। আজকে আমরা আপনাদের মাঝে নিয়ে আসলাম রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের শেষের কবিতা বাংলা লিরিক্স। আপনারা সেকলে হয়তো কম বেশি এই উপন্যাসটি পড়েছেন তাও নানা কাজে শেষের কবিতার কিছু বিখ্যাত লাইন আমাদের জীবনে নানা কাজে লাগে তাই আমরা অনলাইনে খোঁজ করি তাই না। আপনি চাইলে আমাদের ওয়েব সাইট থেকে পড়তে পারবেন অথবা কপি করে লিখে রাখতে পারেন আপনার প্রয়োজন অনুসারে। যেহেতু বর্তমান সময়ে আমাদের কাছে কম বেশি র্স্মাট আছে তাই না। আপনি চাইলে আমাদের কাছ থেকে শেষের কবিতা উপন্যাস pdf file download করে নিয়ে আপনার ফোনে আপনার সময় অনুসারে পড়তে পারেন কোন প্রকার ঝামেলা ছাড়াই। ফাইলটি ডাউনলোড করতে হলে আমাদের পোষ্টের নিচে কমন্টে করার ব্যবস্থা করা আছে আপনি সেখানে কমেন্ট করতে পারেন আমরা আপনাকে সঠিক ডাউনলোড লিংকটি প্রদান করবো। এখানে সরাসরি লিংকটি না দিবার কারন হলো এতে আমাদের নানা প্রকার সমস্যা হতে পারে তাই shesher kobita pdf download লিংকটি পেতে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন। 

 

shesher kobita pdf

 

 

কালেরযাত্রার ধ্বনি শুনিতে কি পাও?

 

তারিরথ নিত্যই উধাও

জাগাইছেঅন্তরীক্ষে হৃদয়স্পন্দন-

চক্রেপিষ্ট আঁধারের বক্ষ ফাটা তারার ক্রন্দন।

ওগোবন্ধু,

সেইধাবমান কাল

জড়ায়েধরিল মোরে ফেলি তার জাল-

তুলেনিল দ্রুত রথে

দুঃসাহসীভ্রমনের পথে

তোমাহতে বহু দূরে।

মনেহয় অজস্র মৃত্যুরে

পারহয়ে আসিলাম

আজিনব প্রভাতের শিখরচুড়ায়;

রথেরচঞ্চল বেগ হাওয়ায় উড়ায়

আমারপুরানো নাম।

ফিরিবারপথ নাহি;

দুরহতে যদি দেখ চাহি

পারিবেনা চিনিতে আমায়।

হেবন্ধু বিদায়।

কোনোদিনকর্মহীন পূর্ণ অবকাশে

বসন-বাতাসে

অতীতেরতীর হতে যে রাত্রে বহিবেদীর্ঘশ্বাস,

ঝরাবকুলের কান্না ব্যতিবে আকাশ,

সেইক্ষনে খুঁজে দেখো, কিছু মোর পিছে রহিল সে

তোমারপ্রাণের প্রানে-; বিস্মৃতি প্রদোষে

হয়তোদিবে সে জ্যোতি,

হয়তোধরিবে কভু নামহারা স্বপ্নের মুরতি।

তবুসে তো স্বপ্ন নয়,

সবচেয়ে সত্য মোর, সেই মৃত্যুঞ্জয়-

সেআমার প্রেম,

তারেআমি রাখিয়া এলেম

অপরিবর্তনঅর্ঘ্য তোমার উদ্দেশ্যে।

পরিবর্তনেরস্রোতে আমি যাই ভেসে

কালেরযাত্রায়।

হেবন্ধু, বিদায়।

তোমারহয় নি কোনো ক্ষতি।

মর্তেরমৃত্তিকা মোর, তাই দিয়ে অমৃতমুরতি

যদিসৃষ্টি করে থাক, তাহারি আরতি

হোকতব সন্ধ্যাবেলা-

পুজারসে খেলা

ব্যাঘাতপাবে না মোর প্রত্যহেরম্লানস্পর্শ লেগে;

তৃষার্তআবেগবেগে

ভ্রষ্টনাহি হবে তার কোনো ফুল নৈবেদ্যের থালে।

তোমারমানস ভোজে সযত্নে সাজালে

যেভাবরসের পাত্র বাণীর তৃষায়

তারসাথে দিব না মিশায়ে

যামোর ধুলির ধন, যা মোর চক্ষেরজলে ভিজে।

আজওতুমি নিজে

হয়তোবা করিবে রচন

মোরস্মৃতিটুকু দিয়ে স্বপ্নবিষ্ট তোমার বচন।

ভারতার না রহিবে, নারহিবে দায়।

হেবন্ধু, বিদায়।

মোরলাগি করিয়ো না শোক-

আমাররয়েছে কর্ম, আমার রয়েছে বিশ্বলোক।

মোরপাত্র রিক্ত হয় নাই,

শূন্যেরকরিব পূর্ণ, এই ব্রত বহিবসদাই।

উৎকন্ঠআমার লাগি কেহ যদি প্রতীক্ষিয়া থাকে

সেইধন্য করিবে আমাকে।

শুক্লপক্ষহতে আনি

রজনীগন্ধারবৃন-খানি

যেপারে সাজাতে

অর্ঘ্যথালাকৃষ্ণপক্ষ রাতে,

যেআমারে দেখিবারে পায়

অসীমক্ষমায়

ভালোমন্দমিলায়ে সকলি,

এবারপূজায় তারি আপনারে দিতে চাই বলি।

তোমারেযা দিয়েছিনু তার

পেয়েছেনিঃশেষ অধিকার।

হেথামোর তিলে তিলে দান,

করুণমুহুর্তগুলি গন্ডুষ ভরিয়া করে পান

হৃদয়অঞ্জলি হতে মম।

ওমোতুমি নিরুপম,

হেঐশ্বর্য্যবান,

তোমারেযা দিয়েছিনু সে তোমারি দান;

গ্রহনকরেছ যত ঋণী ততকরেছ আমায়।

হেবন্ধু বিদায়।

Spread the love

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *